মহারাষ্ট্রে অ বিজেপি সরকার তৈরির সম্ভাবনা

মহারাষ্ট্রে বিজেপি বিরোধী সরকার তৈরির প্রবল সম্ভাবনা
মহারাষ্ট্রের সরকার গড়ার লক্ষ্যে শিবসেনা কে রেখেই কংগ্রেস এবং এনসিপি অগ্রসর হতে শুরু করেছে ।অ বিজেপি প্রতিটি রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে যে ,আমাদের তৈরি সরকার পাঁচ বছরই ক্ষমতায় থাকবে ।এনসিপি নেতা শরদ পাওয়ার তাঁর বক্তব্যে এটা পরিষ্কার করে দিয়েছেন যে, সরকার তৈরি নিয়ে শিবসেনা ও কংগ্রেসের সঙ্গে আলোচনা প্রায় শেষ পর্যায়ে ।
                 চলতি বিধানসভার মেয়াদ ফুরানোর আগে কোনরকম অন্তর্বর্তীকালীন নির্বাচনের সম্ভাবনা একদম বাতিল করে দিয়েছেন শারদ পাওয়ার।জানা গেছে, আজ ই  মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল ভগৎ সিং কোশিয়ারির  সঙ্গে দেখা করতে চলেছেন এনসিপি, কংগ্রেস এবং শিবসেনার যৌথ উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদল।
                  কংগ্রেস এবং এন সি পির  সমর্থনে সরকার গড়তে চলেছে শিবসেনা- এমনটাই বিভিন্ন মহল থেকে শুনতে পাওয়া যাচ্ছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, মুখ্যমন্ত্রীর আসন আড়াই বছরের সময়কালের জন্য ভাগাভাগি নিয়ে বিজেপির সঙ্গে কোনো সমঝোতা শিবসেনার হয়নি শিবসেনার। গত ১২ ই নভেম্বর মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হলেও সেখানকার বিধানসভা কে জিইয়ে রাখা হয়েছে।
                   রাজ্যপাল ভগৎ সিং কুশিয়ার সঙ্গে তিন দলের যৌথ প্রতিনিধি দলের বৈঠক চূড়ান্ত হয়ে যাওয়ার পরই মহারাষ্ট্রের নতুন সরকার তৈরির সম্ভাবনা বেশ খানিকটা উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে। রাজ্যপালের সঙ্গে সাক্ষাতের সময় সরকার গঠনের দাবি জানানো হবে কিনা– এই প্রশ্ন করা হলে তিনি দলের নেতারাই কৌশলে এড়িয়ে যান বিষয় টি।
                  তিনটি রাজনৈতিক দলেরই দৃষ্টিভঙ্গির মধ্যে যথেষ্ট পার্থক্য রয়েছে। বিশেষ করে শিবসেনার সাম্প্রদায়িক অবস্থানকে ঘিরে কংগ্রেস দলের মধ্যে বেশ কিছু আপত্তি রয়েছে। তাই সাধারণ মানুষের ভেতরে যাতে কোনো রকম ভুল বোঝাবুঝি না হয় ,তাই জন্য সরকার পরিচালনা ঘিরে ,একটি অভিন্ন ন্যূনতম কর্মসূচির কথা তিন দলের নেতাদের প্রাথমিক আলোচনার মধ্যে রয়েছে।
                    এনসিপি নেতা তথা মহারাষ্ট্রের প্রবীণ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব শরদ পাওয়ার এই অভিন্ন কর্মসূচিতে উন্নয়নের কয়েক দফা ঘোষণা করার কথা স্পষ্টভাবেই বলবার পক্ষে মত দিয়েছেন। কংগ্রেস ,এনসিপি ও শিবসেনা এই তিন দলের নেতারা বলেছেন; এই নূন্যতম কর্মসূচির  প্রাথমিক খসড়া প্রায় তৈরি হয়ে গিয়েছে ।আগামীকাল কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে শারদ পাওয়ারের বৈঠকের জোরালো সম্ভাবনা রয়েছে। জানা গিয়েছে, সেখানে অভিন্ন ন্যুনতম কর্মসূচির খসড়া  বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলাপ আলোচনা হবে।
                      বিজেপি রাজ্য সভাপতি চন্দ্রকান্ত পা তিল দাবি করেছেন ;সরকার গড়ার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে তাঁর দলের।প্রসঙ্গত উল্লেখ্য বিধানসভার গরিষ্ঠতার জন্য যে ১৪৪ জন বিধায়কের সমর্থন দরকার, সেই গরিষ্ঠতা বিজেপির নেই। বিজেপি সদ্যসমাপ্ত মহারাষ্ট্র বিধানসভার নির্বাচনে মাত্র ১০৫ টি আসন পেয়েছে। মহারাষ্ট্র বিধানসভার মোট আসনসংখ্যা ২৮৮।
              চন্দ্রকান্ত পাতিল বলেছেন; নির্দল বিধায়ক ধরে মোট ১১৯  জন বিধায়ক তাঁদের সঙ্গে রয়েছেন ।কিন্তু ম্যাজিক ফিগার যোগাড় করবার জন্য বাকি সংখ্যা কোথা থেকে তাঁরা পাবেন- তার কোন দিশা কিন্তু চন্দ্রকান্ত পাতিল জানাননি।
                গত নির্বাচনের পর শিবসেনার বিধানসভায় আসন সংখ্যা ৫৬ এনসিপি’র ৫৪ এবং কংগ্রেসের ৪৪।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *