বাংলাদেশে বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপন: জঙ্গি হামলার আশঙ্কা না থাকলেও বাড়তি নিরাপত্তা জোরদার

হাবিবুর রহমান, ঢাকা : ১৮ মে আগামী শনিবার বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপিত হবে। দিনটিকে ঘিরে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা নেই বলে জানিয়েছে পুলিশ। তারপরেও রাজধানীসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অতিরিক্ত নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। দেশের মসজিদ, মন্দির ও গির্জাসহ বিভিন্ন উপাসনালয়ে বাড়তি নিরাপত্তার পাশাপাশি গোয়েন্দারা বিশেষ নজরদারী করছে বলে জানা গেছে। 

ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, বিদেশিদের বাসা-কর্মস্থলে তাদের চলাফেরায় নজরদারি ও সতর্কতা বাড়ানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি পুলিশের বিশেষ শাখা থেকে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন পুলিশ সদর দফতরে দাখিল করা হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে জঙ্গিদের ব্যাপারে মাঠপর্যায়ের তথ্য সংগ্রহ করে পুলিশ সদর দফতরে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে আরো তথ্য সংগ্রহ করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, যে কোনো নাশকতা ঠেকাতে পুলিশকে আরো সতর্ক হতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় খুলনা জেলার ১৩১টি গির্জায় নজরদারি বাড়ানো রয়েছে। সেখানে কর্তব্যরত ধর্মযাজক ও ভিনদেশি নাগরিক বিশেষ করে চীন, ভারত ও নিউজিল্যান্ডের নাগরিকদের অতিরিক্ত নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনের সাথে আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত জেলা কোর কমিটি এ সিদ্ধান্তের কথা জেলা প্রশাসন, কেএমপি ও জেলা পুলিশ প্রশাসনকে জানিয়েছে।

পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপনকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসী ও নাশকতামূলক হামলার সুনির্দিষ্ট কোনো আশঙ্কা নেই। তবু বাড়তি সতর্কতার অংশ হিসেবে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানোর পাশাপাশি নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বিশেষ করে বৌদ্ধমন্দিরসহ দেশের সব ধর্মীয় উপাসনালয়কে সুরক্ষিত রাখতে সব ইউনিটকে প্রয়োজনীয় নির্দশনা দিয়েছে পুলিশ সদর দফতর। 

এ উপলক্ষে রাজধানীসহ সারাদেশে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে চেকপোস্ট স্থাপন করে তল্লাশি কার্যক্রম চালাবে পুলিশ। এছাড়া স্থানীয় ধর্মীয় নেতারা ও জনগণের সাথে পরামর্শ করে নিরাপত্তা পরিকল্পনা সাজাতে বলা হয়েছে। সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে কমিউনিটি পুলিশিং ও স্থানীয় ভলানটিয়ারদের সহায়তা নিতেও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি) সোহেল রানা বলেন, আসন্ন বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপনে কোনো ধরনের নাশকতার সুনির্দিষ্ট তথ্য নেই। তারপরও বাড়তি সতর্কতা হিসেবে গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে নজরদারি বাড়াতে বলা হয়েছে। শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপনের স্বার্থে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বনের পাশাপাশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে পুলিশের সংশ্লিষ্ট ইউনিটগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া কথা জানান তিনি।

বিমানবন্দর আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের সহকারী পুলিশ সুপার তারিক আহমেদ জানান, পোশাকে এবং সিভিল ড্রেসে তাদের কর্মীর সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। স্ক্যানিংয়ের জায়গাতেরও লোকবল বাড়ানো হয়েছে। সতর্কাবস্থায় রাখা হয়েছে নিরাপত্তা কর্মীদের। তিনি আরো জানান, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের দুটি প্রবেশ পথে এপিবিএনের সতর্কতা ও টহলও জোরদার করা হয়েছে।

অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক ইকবাল হাসান বলেন, আগামী ১৮ মে বুদ্ধপূর্ণিমা উপলক্ষে কারাগারগুলোতে অধিকতর সতর্কতা ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, এটি রেড অ্যালার্ট নয়, তবে সবাইকে অধিকতর সতর্কতা অবলম্বন করতে বলা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কারাগারের নিরাপত্তা আরো জোরদার করতে নির্দেশ দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *