চূড়ান্ত পর্বে রিয়ালের কাছে তিন গোলে পরাস্ত লিভারপুল

নাটকীয় ছন্দে আরও একবার উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের জয়ীর দাবিদার হল রিয়াল মাদ্রিদ। এই নিয়ে মোট তেরোবার এবং পরপর তিনবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগে “সেরার সেরা” খেতাব হাশিল করল রনাল্ডো-রামোস-মারসেলোরা। চূড়ান্ত পর্বে লিভারপুল টক্কর দিলেও গতকালের ম্যাচে তাদের সেরকম ভাবে চখে পড়েনি। আরও একবার রিয়ালের জয়ধ্বনি বেজে উঠল গোটা ইউরোপ তথা সারা বিশ্বে।
এবার আসা যাক গতকালের ফাইনালে। শুরুতে বেশ আক্রমণাত্মক হয়ে খেলতে দেখা গিয়েছিল লিভারপুলকে। রিয়ালের গোলবক্সে মহম্মদ শালাহ, সাদিয় মানেদের মুহুর্মুহু আক্রমনের কাছে বারাবার পরাস্ত হতে হচ্ছিল রিয়ালকে। খেলার ৩০ মিনিটে মাঠে রামোসের সাথে সংঘর্ষে চোট পেয়ে উঠে যেতে হয় মহম্মদ শালাহকে। আবার ৩৭ মিনিটে পায়ে আঘাত পেয়ে উঠে যান কারভাজাল। তার পরিবর্তে আসে নাচো। একাধিক চোটের সাথে সাথে প্রথমার্ধ অবধি খেলা গোলশূন্যতেই সমাপ্ত হয়।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই গোল করে রিয়াল মাদ্রিদ। ৫০ মিনিটের মাথায় লিভারপুল গোলকিপার কারিয়াসের ছোট্ট একটি ভুলে জালে বল জড়ান বেঞ্জিমা। অন্যদিকে ৫৪ মিনিটে লিভারপুলের হয়ে গোল শোধ করেন সাদিও মানে। সঙ্গে সঙ্গেই লিভারপুল সমর্থকদের দারুন উন্মাদনা গোটা কিয়াভ স্টেডিয়ামটাকে ঘিরে ফেলে। এরপর গতকালের তুরুপের তাসটি ব্যাবহার করেন জিদান। ইস্কোর পরিবর্তে মাঠে আনেন গ্যারেথ বেলকে। নামার সাথে সাথে অপূর্ব বাইসাইকেল কিকের মাধ্যমে গোল করেন উনি। এগিয়ে যায় রিয়াল। চাপ সৃষ্টি হয় লিভাপুলের ওপর। আবার ৮২ মিনিটে অসাধারণ দুরপাল্লার শটে আরও একটি গোল করেন বেল। খেলার ফলাফল দাঁড়ায় রিয়াল মাদ্রিদ ৩ এবং লিভারপুল ১। রিয়ালের মুকুটে যুক্ত হল আরও একটি জয়ের পালক। “হালা মাদ্রিদের” ভাষায় ভেসে উঠল গোটা কিয়েভ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *